1. bbdbarta@gmail.com : Delowar Delowar : Delowar Delowar
  2. bbdbartabd@gmail.com : Delower Hossain : Delower Hossain
  3. jmitsolution24@gmail.com : support :
বৃহস্পতিবার, ১৬ মে ২০২৪, ০৯:৫৫ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
আসামির নামের সঙ্গে শুধুমাত্র নাম মিল থাকায় গ্রেফতার হল কলেজ ছাত্র পরকীয়া প্রেমিকার সঙ্গে অন্তরঙ্গ অবস্থায় ধরা পড়ল প্রধান শিক্ষক পরে গণধোলাই গোপালগঞ্জ জেলায় এসএসসি পরীক্ষায় তৃতীয় স্থান অর্জন করেছে রাবেয়া-আলী গার্লস স্কুল অ্যান্ড কলেজ। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজ জিতলো বাংলাদেশ। ইতালী যাওয়ার পথে তিউনিশিয়ার ভূমধ্যসাগরে ৮ বাংলাদেশী নিহত ডেঙ্গুজ্বর এর লক্ষণ ও ধরন সম্পর্কে জানুন শিবচর রেল স্টেশনে জোড়া ট্রেন উদ্বোধন করেন রেলমন্ত্রী মো: জিল্লুল হাকিম মাদারীপুরের শিবচর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বিনাপ্রতিদ্বন্ধিতায় ৩ প্রার্থী বিজয়ের পথে আজ ৬ জেলায় ঝড়বৃষ্টির হওয়ার সম্ভাবনা টেকেরহাট কুমার নদীতে বৈদ্যুতিক শক মেশিন দিয়ে মৎস্য নিধন হুমকিতে জীববৈচিত্র্য ও পরিবেশ

ঐতিহাসিক গাজীর ভুই নামকরনের সংক্ষিত ইতিহাস

  • Update Time : মঙ্গলবার, ২৪ জানুয়ারী, ২০২৩
  • ২১৫ Time View

দৈনিক বঙ্গবন্ধু দেশ বার্তা : গোপালগঞ্জ জেলার অন্তগর্ত মুকসুদপুরের উপজেলার রাঘদী ইউনিয়নের বড়দিয়া গ্রামে রয়েছে ঐতিহাসিক গাজীর ভুই র মাঠ প্রাঙ্গন ও একটি অনাবাদি বিশাল জমি । জানাযায় আজ থেকে দুই শতর বছরে ও বেশী  আগে থেকে গাজী আর কালু দুই ভাই,  অচিনপুর রাজ্যে ছিল তাদের বাস।”গাজী” প্রকৃত নাম নয়, ইহা ধর্মীয় উপাধি । ইহার অর্থ মুজাহেদ বা ধর্মযুদ্ধে বিজয়ী বীর, অর্থৎ বিধর্মীদের সাথে যুদ্ধ করে যিনি জয়লাভ করেন, তিনিই ‘গাজী’ নামে সম্মানীত হন।তাঁর প্রভাব ও প্রতিপত্তিতে দক্ষিণ অঞ্চল অর্থাৎ ভাটি অঞ্চলে ইসলাম বিস্তার লাভ করে।

ইতিহাস ও পৌরাণিক কাহিনীখ্যাত গাজী ও কালুর নাম এতদাঞ্চলে সর্বজন বিদিত। ধর্মমত নির্বিশেষে সকলেই গাজীর নামে শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করে থাকেন। এককালে গাজী তাঁর দুর্জয় শক্তিদ্বারা এমন অভাবনীয় পরিবেশ সৃষ্টি করেছিলেন যে, সমগ্র দেশ গাজীময় হয়ে উঠেছিল।  বিভিন্ন স্থানেরনেয়  বাংলাদেশের দক্ষিন পশ্চিম অঞ্চলের বর্তমান .গোপালগঞ্জ জেলার মুকসুদপুরের উপজেলাধীন রাঘদী ইউনিয়নের  বড়দিয়া গ্রামে একটি অনাবাদি বিশাল জমির সন্ধান পাওয়া যায় যাহা এলাকাবাসীর কাছে গাজীর ভুই  নামে পরিচিত ।

বহু বছর আগে থেকে বড়দিয়া গ্রামে  গাজী ও কালু পীরের ছিল অনেক ভক্ত তাদের মধ্যে অন্যতম হলেন আফতাব ফকিরের ছেলে আকলেম ফরিক(৯৮) আদেল শরীফের ছেলে তোফেল শরীফ(৯৫) মৃর্ত মোন্তাজদ্দিন মোল্যার ছেলে রাজা মোল্যা,হাচেন শেখ এর ছেলে মৃর্ত হাসেম শেখ একই গ্রামের জগাই শেখ এর  ছেলে রাজ্জেক শেখ সহ অরোও অনেকে তারা এই গাজীর ভুইতে অয়োজন করতেন গাজী ও কালুর নামে ফকিরের মেলা।অনাবাদি বিশাল জমির ঠিক মাঝ খানে ছিল একটি কুপ বা বড় গর্ত তার মধ্যে প্রতিদিন ঢালা হত কয়এক শত লিটার দুধ ।কুপের ভিতরে মোমবাতি জ্বালিয়ে বাতাসা ছিটায়ে নানা ধরনের রোগ ব্যাধির চিকিৎসা ,নি:সন্তাদের সন্তান পাওয়ার আশা সহ প্রায় সব ধরনের মনবাসনা পুরনের জন্য হাস মুরগী,গরু খাসি বিভিন্ন ধরনের ফলফলালি নিয়ে আসত দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের হাজার হাজার প্রায় সকল বয়সী নারী পুরুষেরা।অন্ধ বিশ্বাসে গাজীর মানত-শিরনি করে এ গর্ত থেকে মাটি তুলে নিয়ে যেত তারা।

এ ভাবে প্রতি বছরই বাড়তে থাকে অত্র  এলাকায় যুবক- যুবতিদের আড্ডা ।শিরক,কুফর ,বে-দায়েদ কর্মকন্ড ধরাপড়ে স্থানীয় বিশেস্ট আলেম ওলামাদের চোখে তাই তারা ২০১৫ সালের জানুয়ারী মাসে ফকিরের মেলা বসার নির্ধারিত তারিখের আগে খাপুরা গ্রামের দরবেশ সাহেবের নাতী মাওলানা মোহাম্মাদ আব্দুল্লাহ,ও চরপ্রসন্নদী মদিনাতুল উলুম মাদ্রাসার বড় হুজুর পীর এ কামেল আল্লামা মোস্তফা সাহেব , মাওলানা ওমর ফারুক ,মাওলানা লিয়াকত সাহেব, মাওলানা সাহাদাত নোমানী এরা সবাই মিলে তত্কালীন রাঘদী ইউনিয়ের চেয়ারম্যান সাইদুরর রহমান(টুটুল) এর অফিসে আসেন ।

ঐতিহাসিক গাজীর ভুইতে শিরক,কুফর বে-দায়েদ,কর্মকান্ড বন্ধের দাবি জানান তারা।সে সময় সম্পকে সাইদুরর রহমান(টুটুল) বলেন বিষয়টি অত্যান্ত গুরুত্ব নিয়ে আমি পার্শ্ববতী গোহালা উনিয়নের সিন্দিয়াঘাট ডাক বাংলা সংলগ্ন মসজিদে সেখানকার চেয়ারম্যান সফিকুল ইসলাম মোল্যা,মুকসুদপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জনাব আজিজুর রহমান সহ বড়দিয়া গ্রামের হায়দার মোল্যা,ছরোয়ার মাতুব্বর,মনা শেখ আরোও অনেককে নিয়ে বসে আলাপ আলোচনার  মাধ্যমে চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।পরবর্তীতে আবারও সময় তারিখ নির্ধারনের জন্য বসি মেল্লাদী মাদ্রাসায় সে খান থেকে সর্বশেষ চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেই আমরা।

পার্শ্ববর্তী ফরিদপুর,মাদারীপুর ও গোপালগঞ্জ জেলা ও উপজেলারবহু মসজিদ থেকে জামাত বন্দী হয়ে আসে প্রায় তিন থেকে চার হাজার মুসল্লিরা ঐতিহাসিক গাজীর ভুই র মাঠ প্রাঙ্গনের পুরানো ফকিরদের সব ভেঙ্গে কুপ ভরাট করে সেখানে প্র্রথম বছরই প্রায় দশ হাজারের  ও বেশী ধর্ম প্রান মুসলমান নিয়ে তিন দিন ব্যাপি মহান আল্লাহ তায়ালার নামে শুরুহয় বাৎসরিক ইসলামিক মহাসম্মেলন । প্রথম  বছররেই ঈমান.আমল,শিরক,কুফর ,বে-দায়েদ সম্পের্কে দেশ বিদেশ  থেকে আগত ৭০ জনেরও বেশী বরেন্য আলেম ওলামারা গুরুত্বপুর্ন বয়ান রাখেন।এরই ধারাবাহিকতায় ঐতিহাসিক গাজীর ভুই তে প্রতি বছর জানুয়ারী মসে হয় তিন দিন ব্যাপি ইসলামিক মহাসম্মেলন ।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2024