1. bbdbarta@gmail.com : Delowar Delowar : Delowar Delowar
  2. bbdbartabd@gmail.com : Delower Hossain : Delower Hossain
  3. jmitsolution24@gmail.com : support :
রবিবার, ১৯ মে ২০২৪, ০১:১৩ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
আসামির নামের সঙ্গে শুধুমাত্র নাম মিল থাকায় গ্রেফতার হল কলেজ ছাত্র পরকীয়া প্রেমিকার সঙ্গে অন্তরঙ্গ অবস্থায় ধরা পড়ল প্রধান শিক্ষক পরে গণধোলাই গোপালগঞ্জ জেলায় এসএসসি পরীক্ষায় তৃতীয় স্থান অর্জন করেছে রাবেয়া-আলী গার্লস স্কুল অ্যান্ড কলেজ। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজ জিতলো বাংলাদেশ। ইতালী যাওয়ার পথে তিউনিশিয়ার ভূমধ্যসাগরে ৮ বাংলাদেশী নিহত ডেঙ্গুজ্বর এর লক্ষণ ও ধরন সম্পর্কে জানুন শিবচর রেল স্টেশনে জোড়া ট্রেন উদ্বোধন করেন রেলমন্ত্রী মো: জিল্লুল হাকিম মাদারীপুরের শিবচর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বিনাপ্রতিদ্বন্ধিতায় ৩ প্রার্থী বিজয়ের পথে আজ ৬ জেলায় ঝড়বৃষ্টির হওয়ার সম্ভাবনা টেকেরহাট কুমার নদীতে বৈদ্যুতিক শক মেশিন দিয়ে মৎস্য নিধন হুমকিতে জীববৈচিত্র্য ও পরিবেশ

গোপালগঞ্জে আপন বড় ভাই র হাতে ছোট বোন হালিমা খাতুন খুন

  • Update Time : মঙ্গলবার, ৮ মার্চ, ২০২২
  • ৮০১ Time View

দৈনিক বঙ্গবন্ধু দেশ বার্তা : গোপালগঞ্জে আজ মঙ্গলাবার (৮মার্চ) দুপুরে কোটালীপাড়ায় আপন বড় ভাই সিফাতুল্লাহ’র হাতে ছোট বোন হালিমা খাতুন (১৩) খুন হয়েছে।

উপজেলার রাধাগঞ্জ ইউনিয়নের ছোট দিঘলীয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। পারিবারিক কলহের জের এমন ঘটনা ঘটতে পারে বলেছে পুলিশ। এ ঘটনার পর ভাই সিফাতুল্লাহ পালাতক ।

জানাযায় দুপুরে পারিবারিক কলহের জের ধরে স্বামীর উপর অভিমান করে নুরুন্নাহার বেগম বাড়ি থেকে অন্যত্র চলে যায়। অপরদিকে, জাকির হোসেনও বাড়ি থেকে কাজে চলে যায়। এ সময় পারিবারিক কলহ নিয়ে ভাই সিফাতুল্লাহ ও বোন হালিমা খাতুনের সাথে কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে সিফাতুল্লাহ ধারালো অস্ত্র দিয়ে হালিমা খাতুনের গলা কেটে হত্যা করে।

এলকাবাসী বলছেন, নিহতের মা নুরুন্নাহার একাধিক পুরুষের সঙ্গে পরকীয় লিপ্ত ছিলেন। এ নিয়ে পরিবারে সব সময় অশান্তি লেগে থাকতো। আজ দুপুর ১২টার দিকে স্বামী স্ত্রীর ভিতর কথা কাটাকাটি হয়। এসময় স্বামীর উপর অভিমান করে নুরুন্নাহার বেগম বাড়ি থেকে চলে যায়।

এরপর বাবা মায়ের কলহ নিয়ে ভাই সিফাতুল্লাহ ও বোন হালিমা খাতুনের সাথে কথা কাটাকাটি হলে এক পর্যায়ে সিফাতুল্লাহ ধারালো অস্ত্র দিয়ে হালিমা খাতুনের গলা কেটে হত্যা করে।

কোটালীপাড়া থানার ওসি মোঃ জিল্লুর রহমান বলেন, ঘটনার প্রকৃত কারণ এখনো বলা যাচ্ছে না। আমরা সিফাতউল্লাকে আটকের চেষ্টা করছি। সে বর্তমানে পলাতক রয়েছে।

তাকে খুঁজে পেলেই হালিমা হত্যার প্রকৃত ঘটনা জানা যাবে। আমরা হালিমা খাতুনের মরদেহ ময়না তদন্তের জন্য গোপালগঞ্জ সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠিয়েছি।এরপর সন্ধ্যা ৬টার পর সিফাতুল্লাহ নিজে গোপালগঞ্জ সদর থানায় গিয়ে আত্মসমর্পণ করেন।

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2024